...

বাংলার গ্রাম থেকে উঠে এসে বিশ্ব মানবতার মহান নেতা

১৯২০ সালের ১৭ মার্চ। এই বাংলার মাটিতে জন্ম নিলো এক দেবশিশু। বাবা-মা আদর করে নাম দিলেন খোকা। টুঙ্গিপাড়ার ধুলো-মাটি মেখে বেড়ে ক্রমেই উঠলো সে। মধুমতি-বাইগার নদীর পানি ছুঁয়ে আসা বাতাসের পরতে পরতে সুজলা-সুফলা ঘ্রাণ, আর ভোরের কুসুমসূয্যের কিরণে ক্রমেই মহীরূহ
আরো পড়ুন
...

রাজনৈতিক আবহে বেড়ে ওঠা কৈশোর-তারুণ্য

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম ১৯২০ সালে, রাজনীতিতে তার সংশ্লিষ্টতা ১৯৩৯-এ। তার ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ পড়ে আমরা জানতে পারি, ১৯৩৬ সালে তিনি স্বদেশী আন্দোলনের প্রতি অনুরক্ত হন। তার ভাষায়— 'তখন স্বদেশী আন্দোলনের যুগ। মাদারীপুরের পূর্ণ দাস তখন ইংরেজের আতঙ্ক। স্বদেশী আন্দোলন
আরো পড়ুন
...

জন্ম ও বংশ-পরিচয়

বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ গােপালগঞ্জ জেলার ঘাঘাের ও মধুমতি বিধৌত টুঙ্গিপাড়া গ্রামের এক বনেদি মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা শেখ লুৎফর রহমান গোপালগঞ্জ আদালতে সেরেস্তাদারের চাকরি করতেন। মাতার নাম সায়েরা
আরো পড়ুন
...

ছেলেবেলা

শেখ মুজিবুর রহমান ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ গােপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। মা-বাবা তাকে আদর করে ডাকতেন 'খােকা' বলে। ১৯২৭ সালে খােকার বয়স যখন ৭ বছর, তখন তিনি স্থানীয় গিমাভাঙ্গা প্রাইমারি স্কুলে ভর্তি হন। এই স্কুলটির প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন বঙ্গবন্ধু
আরো পড়ুন
...

বিয়ে ও সংসার

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনৈতিক জীবন ও পারিবারিক জীবন একে অন্যের পরিপূরক। একজন দেশপ্রেমী জননেতা হিসেবে তিনি প্রতিষ্ঠিত হতে পেরেছেন পারিবারিক ইতিহাস-ঐতিহ্য, উৎসাহ-অনুপ্রেরণার কারণেই। টুঙ্গিপাড়া গ্রামের শেখ মুজিবুর রহমান একদিন 'বঙ্গবন্ধু' ও 'জাতির জনক' হয়ে উঠলেন-এর নেপথ্যে তার পরিবারের ভূমিকা
আরো পড়ুন
...

বঙ্গবন্ধু ও ফজিলাতুন্নেচ্ছা: জেলের গেটে অর্ধেক সংসার

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তার জীবনে ৪৬৮২ দিন কারাভোগ করেছেন। ব্রিটিশ আমলে স্কুলজীবন থেকে শুরু হয়েছে তারা কারাবরণ। এসময় বঙ্গবন্ধু ৭ দিন কারা ভোগ করেন। বাকি ৪ হাজার ৬৭৫ দিন কারা ভোগ করেছেন পাকিস্তান সরকারের আমলে। ৫৪ বছরের
আরো পড়ুন
...

বঙ্গবন্ধুর চোখে স্ত্রী ফজিলাতুন নেছা

হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাত ধরে বাঙাল জাতির হাজার বছরের দাসত্বের মুক্তি ঘটে। কিন্তু এই পথে তাকে নিঃস্বার্থভাবে সঙ্গ দিয়েছেন তার জীবনসঙ্গী বেগম ফজিলাতুন নেছা (রেণু), ভালোবেসে আগলে রেখেছেন পুরো পরিবারকে। এমনকি বিভিন্ন সময় বিচক্ষণতার সঙ্গে
আরো পড়ুন
...

কন্যার কণ্ঠে পিতার গল্প

কন্যার কণ্ঠে পিতার গল্পজাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্মবার্ষিকীতে শিশুদের সামনে নিজের পিতার শৈশবের গল্প শুনিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর ছোট মেয়ে শেখ রেহানা। ঢাকার স্কলাস্টিকা স্কুলের এক অনুষ্ঠানে ‘আমার বাবার ছেলেবেলা’ শিরোনামে এক বক্তৃতায়  বঙ্গবন্ধুর শৈশবের বিভিন্ন ঘটনার পাশাপাশি রাজনৈতিক
আরো পড়ুন
...

স্মৃতি বড়ো মধুর, স্মৃতি বড়ো বেদনার

অনেক রাত হবে। দোতলার ঘরে মায়ের খাটে আমরা সবাই। মা, আকা, ভাই-বোন কেউ শুয়ে, কেউ বসে খুব গল্প করছি। আব্বাও অনেক কথা বলছেন, আমরা শুনছি। সেই আগের মতো ৩২ নম্বর বাড়িটায় সবাই আছি। বাড়িটি একদম বিধ্বস্ত। এখানে ওখানে গুলির দাগ।
আরো পড়ুন
...

বঙ্গবন্ধু থেকে বিশ্ববন্ধু

বিশ্ব মানবতায় অবদান রাখার কারণে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ১৯৭৩ সালের ২৩ মে বিশ্ব শান্তি পরিষদ কর্তৃক ‘জুলিও কুরি’ শান্তি পদকে ভূষিত করা হয়। বিশ্ববিখ্যাত বিজ্ঞানী ম্যারি কুরি ও পিয়েরে কুরি দম্পতি বিশ্ব শান্তির সংগ্রামে যে অবদান রেখেছেন,
আরো পড়ুন
...

১৫ আগস্ট কালরাত: বাংলার অন্ধকার আকাশে হিংস্র শকুনের থাবা

স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি নাম, চেতনা ও অধ্যায়। যার জন্ম না হলে হয়তো আমরা স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র পেতাম না। তাকে ১৯৭৫ সালে কিছু বিপদগামী সেনা কর্মকর্তা নৃশংসভাবে হত্যা করে। বাঙালি
আরো পড়ুন